Breaking News
Home / চিকিৎসা / ময়মনসিংহ হাসপাতাল পরিচালকের সাথে সিটি মেয়রের মতবিনিময়

ময়মনসিংহ হাসপাতাল পরিচালকের সাথে সিটি মেয়রের মতবিনিময়

স্টাফ রিপোর্টার। ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বিদ্যামান সেবাদান কার্যক্রমের সাফল্য ও অগ্রযাত্রা দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ইকরামুল হক টিটু।

আগামীতে সরকারের এই সাফল্য ও অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে হাসপাতাল পরিচালকের পাশে থাকার অঙ্গীকার করেন মেয়র। বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলসহ আশপাশের জেলার হতদরিদ্র মানুষের আধুনিক চিকিৎসা সেবার ভরসাস্থল ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা কার্যক্রমের

সাফল্যের জন্য সিটি মেয়র হাসপাতাল পরিচালকসহ সর্বস্তরের চিকিৎসক, নার্স কর্মকর্তা কর্মচারীদের প্রতি ধন্যবাদ জানান। সাফল্যের এই ধারা অব্যাহত রাখতে সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহয়োগিতারও আশ্বাস দেন মেয়র ইকরামুল হক টিটু।


ডেঙ্গু পরিস্থিতিসহ হাসপাতালের সার্বিক চিকিৎসা সেবার ব্যবস্থাপনা নিয়ে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ইকরামুল হক টিটু মতবিনিময়কালে এই আশ্বাস দেন। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে হাসপাতালের সম্মেলন কক্ষে এই

মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়। হাসপাতাল পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাছির উদ্দিন আহমদ এসময় হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম ও পরীক্ষা নিরীক্ষাসহ হাসপাতালের রাজস্ব আয় বৃদ্ধি এবং বিদ্যমান সেবাদান কার্যক্রমের চিত্র তুলে ধরে এটি অব্যাহত রাখতে সিটি মেয়রের সহায়তা

চান। ময়মনসিংহ সিটি মেয়র ইকরামুল হক টিটু এসময় হাসপাতালের সেবাদান কার্যক্রমে বর্তমান পরিচালকের নানামুখী উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে এটি অব্যাহত রাখতে সিটি কর্পোরেশনসহ দলীয় ও ব্যক্তিগত সবধরনের সহায়তার পাশাপাশি হাসপাতাল পরিচালকের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দেন।


হাসপাতাল পরিচালক জানান, এক হাজার শয্যার হাসপাতালে গড়ে প্রায় ৩ হাজার রোগী ভর্তি থাকছে। এছাড়া হাসপাতালের আউডোরে প্রায় ৬ হাজার ও ওয়ানস্টপ সার্ভিসসহ জরুরি বিভাগে আরো প্রায় ৫০০ রোগী চিকিৎসা নিতে আসছে। এক হাজার শয্যার অনুমোদিত লোকবল দিয়ে বাড়তি

এসব রোগীর চাপ সামাল দিতে প্রতিনিয়ত হিমসিম খাচ্ছেন কর্তব্যরত ডাক্তার নার্স ও কর্মচারীরা। তারপরও ডাক্তার নার্স কর্মচারীদের আন্তরিকতার ফলে হাসপাতালের সেবাদান কার্যক্রম ও অগ্রযাত্রার জন্য দেশসেরা হাসপাতালের মর্যাদা লাভ করে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল। সর্বশেষ গত ২০১৮ সালে

প্রসূতি সেবায় বিদ্যমান কার্যক্রমের জন্যও পুরস্কার লাভ করে হাসপাতালটি। নামমাত্র ফীয়ে পরীক্ষাসহ বিনামূল্যের শতভাগ ওষুধ পেয়ে খুশি রোগীরা। এসবের পাশপাশে আধুনিক মানের এমআরআই ও সিটি স্ক্যান মেশিন স্থাপন, হেমোডায়ালাইসিস মেশিনে কিডনী রোগীদের সেবা, থ্যালাসেমিয়া, চক্ষু

রোগীদের আধুনিক পরীক্ষার মেশিন সংযোজন এবং হৃদ রোগীদের জন্য বহুল প্রত্যাশিত ক্যাথল্যাব স্থাপন প্রক্রিয়াধীন বলে জানান পরিচালক। নিউরো সার্জারি ও ইউরোলজীসহ বার্ণ ও প্লাস্টিক সার্জারি সংযোজন রোগীদের ভোগান্তির অবসান ঘটিয়েছে বলে জানান এসময় পরিচালক। এসব নানামুখী

ইতিবাচক উদ্যোগের ফলে হাসপাতালের রাজস্ব আয় বেড়েছে বহুগুণ। গত ২০০৭ সালে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ভর্তি, টিকেট, এম্বুলেন্স, কেবিন ও পেয়িং বেড ভাড়াসহ অপারেশন চার্জ ও টেষ্টের ফি নির্ধারন করে দেয়। এসব খাত থেকে আদায় করা অর্থ ইউজার ফি হিসেবে জমা হয় সরকারী কোষাগারে। গত

২০১৫-১৬ অর্থবছরে ইউজার ফি থেকে ময়মনসিংহ মেডিক্যালের রাজস্ব আয় ছিল ৬ কোটি ৭ লাখ ৩৭ হাজার ৩৬৩ টাকা। গত ২০১৬-১৭ অর্থবছরে এই আয় ছিল ৮ কোটি ৩১ লাখ ১৪ হাজার ৭৯১ টাকা, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে এই আয় ছিল ৯ কোটি ৬০ লাখ ৯৮ হাজার ৬২৫ টাকা। গত ১০১৮-১৯ অর্থ বছরে এক লাফে এই রাজস্ব আয় দাড়ায় ১৩ কোটি ৪ লাখ ৩৪ হাজার ৫৯২ টাকা।

মতবিনিময়কালে সিটি মেয়র ইকরামুল হক টিটু এসব সাফল্যের জন্য হাসপাতাল পরিচালককে ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানান। হাসপাতালের পরিস্কার পরিচ্ছন্ন পরিবেশ বজায় রাখতে সময়মত এর ময়লা আবর্জনা অপসারণ ও পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থাসহ রাতের বেলায় হাসপাতাল ক্যাম্পাসে পর্যাপ্ত

আলোর ব্যবস্থা করার আশ্বাস দেন। হাসপাতালে আসা রোগীদের স্বার্থে সব ধরনের সহযোগিতারও আশ্বাস দেন সিটি মেয়র। হাসপাতালের সামনের সড়কের ওপর থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও যানজট নিরসনেও উদ্যোগ নেয়া হবে বলে জানান মেয়র। মতবিনিময়ের আগে ময়মনসিংহের সিটি মেয়র

ইকরামুল হক টিটুকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা ও স্বাগত জানান হাসপাতাল পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাছির উদ্দিন আহমদ। মতবিনিময়কালে হাসপাতালের উপ পরিচালক ডা. লক্ষী নারায়ন মজুমদারসহ হাসপাতাল প্রশাসন ও সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৩:৩২ অপরাহ্ণ | আগস্ট ২১, ২০১৯

Check Also

ময়মনসিংহে সদর উপজেলায় সবার আগে শতভাগ ই-নামজারি চালু ,উন্নয়নে রোল মডেল

স্টাফ রিপোর্টার ঃ ময়মনসিংহ সদর উপজেলায় সবার আগে শতভাগ ই-নামজারি চালু ও উন্নয়নে রোল মডেল …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *